Business is booming.

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এর তিনটি রেকর্ড

0

শেয়ারবাজারের মূলধন এবং সূচকে লেনদেন এবং বেচাবিক্রি ভালো হওয়ার পেছনে শেয়ারের দাম বৃদ্ধির কারণ উল্লেখ করেছে বাজার সংশ্লিষ্টরা।

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আজ ৫৬ পয়েন্ট বা প্রায় ১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৬ হাজার ৪৮২ পয়েন্টে। আর তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্য থেকে বাছাই করা ৩০ কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত ডিএস-৩০ সূচকটি ১৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৩৪৪ পয়েন্টে। ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি এ দুটি সূচক চালু হয়েছিল। চালু হওয়ার প্রায় সাড়ে আট বছর পর এসে আজ সূচক দুটি সর্বোচ্চ উচ্চতায় উঠেছে।
এ ছাড়া ডিএসইর বাজার মূলধন আজ এক দিনেই ৩ হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৩৭ হাজার ৮৩১ কোটি টাকায়। এটিই ঢাকার বাজারের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ বাজার মূলধন।
বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সূচক এবং মূলধন এখন এমন পর্যায়ে আছে যে প্রতিদিন কিছুটা বৃদ্ধি পেলেই গড়ে উঠবে নতুন নতুন রেকর্ড। অন্যদিকে ভালো শেয়ারে দাম বৃদ্ধি পেলে শেয়ারবাজারের রেকর্ডের পরিমাণ পৌঁছে যাবে অনন্য উচ্চতায়।
ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালের নভেম্বরে ঢাকার বাজারে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স একবার সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৩৩৭ পয়েন্টের রেকর্ড উচ্চতায় উঠেছিল। সেখান থেকে কমতে কমতে ২০২০ সালের মার্চে করোনার জন্য সাধারণ ছুটি ঘোষণার আগে সূচকটি সর্বনিম্ন ৩ হাজার ৬০০ পয়েন্টে নেমে গিয়েছিল।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেতৃত্বে পরিবর্তন আসার পর থেকে প্রায় দুই মাস পর আবারও লেনদেন ২ হাজার ১০০ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।
সোমবার ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ ছিল প্রায় ২ হাজার ১৮৮ কোটি টাকা, যা গত ১০ জুনের পর সর্বোচ্চ। এর আগে ১০ জুন ২ হাজার ৬৬৯ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছিল।

Leave A Reply

Your email address will not be published.